কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পৌঁছানোর আগে মিড ডে মিল প্রকল্পে দেওয়া হল নতুন ১০টি নির্দেশিকা।

আবাস যোজনার পর এবার মিড ডে মিল। রাজ্যের বিজেপি নেতাদের আবাস যোজনা নিয়ে নালিশের ভিত্তিতে রাজ্যে ইতিমধ্যেই এসে পৌঁছেছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই আবার রাজ্যের স্কুলে স্কুলে মিড ডে মিল প্রকল্প খতিয়ে দেখতে আসছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। জানা যাচ্ছে প্রতিনিধি দলটি চলতি সপ্তাহ থেকে স্কুলে স্কুলে ঘুরে মিড ডে মিল প্রকল্পের খুঁটিনাটি যাচাই করে দেখবে।

জানা যাচ্ছে পি এম পোষণ প্রকল্পের আওতায় কেন্দ্রীয় দল সবকিছু ক্ষতিয়ে দেখবেন,তাদের সঙ্গে থাকবেন ‘জয়েন্ট রিভিউ মিশনে নামে রাজ্যের অধিকারিকরা। ওই সকল আধিকারিকরা খাবারের গুণগত মান,মিল শিক্ষক অভিভাবকরা চেখে দেখেন কি না,মিড ডে মিলে শিক্ষকদের ভূমিকা,রান্না ঘর ও খাবারের জায়গার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা,২০১৫ সালে বলবত করা মিড ডে মিল আইন প্রয়োগ করা হচ্ছে কি না,মিড ডে মিলের বরাদ্দ টাকার খরচ,রাঁধুনি ও সহায়কদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট আছে কিনা ইত্যাদি বিষয়ে খোঁজ নেবেন।

(আরও পড়ুন : জেনে নিন ১৫ শর্ত;না মানলে মিলবে না আবাস যোজনার বাড়ি)

প্রতিনিধি দল এসে পৌঁছানোর আগেই শনিবার শিক্ষা দপ্তরের তরফ থেকে জারি করা হলো একগুচ্ছ নির্দেশিকা। রাজ্য ও জেলাস্তরের অধিকারিকদের সঙ্গে নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠকে রাজ্য শিক্ষা দপ্তরের আধিকারিকরা রাজ্যের স্কুলগুলির মিড ডে মিল সংক্রান্ত অভিযোগ নিয়ে আলোচনা করেন। কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল যেন মিড ডে মিল (Mid Day Meal) নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ না করতে পারেন দেওয়া হয় সেই সংক্রান্ত নির্দেশিকাও,মিড ডে মিল কেন্দ্রগুলি কিভাবে সুষ্টভাবে পরিচালনা করতে হবে সেই পথও বাতলে দেওয়া হয়। বৈঠকের শেষে রাজ্যের সব মিড ডে মিল কেন্দ্রগুলিতে দশ দফার নির্দেশ কার্যকর করার ব্যাপারে একমত হন শিক্ষা দফতরের আধিকারিকরা।

মিড ডে মিল প্রকল্পের জন্য রাজ্যের দেওয়া দশ দফার নির্দেশ :

  • কেন্দ্রের তরফ থেকে প্রায়শই অভিযোগ করা হয় কেন্দ্রের প্রকল্পের নাম বদলে রাজ্যের নামে চালানো হয়,উক্ত প্রকল্পের লোগো বদলে রাজ্য সরকার নিজেদের লোগো ব্যবহার করে চেষ্টা করা হয় সাধারণ নাগরিকদের মন জয়ের। সেই কারণে সোমবার (২৩ জানুয়ারি) থেকে মিড ডে মিলে পি এম পোষণ প্রকল্পের লোগো ব্যবহার করা হবে।
  • প্রতিদিন মিড ডে মিলের খাদ্য তালিকায় কি থাকছে তা প্রকাশ্যে জানাতে হবে।
  • মিড ডে মিল রান্নার সময় রাঁধুনিদের টুপি ও আপ্রন পড়া অবশ্যক।
  • মিড ডে মিল রান্না ও সরবরাহে ব্যবহৃত হাঁড়ি,বাসন, চামচ,গ্লাস ইত্যাদি পরিষ্কারভাবে ধুয়ে রাখতে হবে।
  • ভাঙা বাসন পত্র ব্যবহার করা চলবে না।
  • স্কুলে নিয়মিতভাবে আয়োজন করতে হবে স্বাস্থ্য শিবিরের।
  • মিড ডে মিল বাবদ খরচের যাবতীয় হিসাব ব্লকের অতিরিক্ত হিসাবরক্ষক ব্লক পর্যায়ের ক্লার্ককে দিয়ে করাতে হবে।
  • এই হিসাবের কাজ করানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে।
  • নিয়মিত মিড ডে মিলের খাবারের মান পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখতে হবে,রাখতে হবে হাত স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থাও।
  • কোন কারণবশত মিড ডে মিলের খাবার অন্য কোন জায়গা থেকে নিয়ে আসা হলে সেই খাবারের মান সবদিক দিয়ে সুরক্ষিত থাকে সেই বিষয়ে নজর রাখতে হবে।
শেয়ার করুন

Leave a Comment