ডিএ মামলায় নতুন রায়;খুশি সরকারি কর্মচারীরা।

বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন ডিএ মামালার রায়। তারই মধ্যে দেওয়া হয়েছিল পথে নেমে আন্দোলনের হুশিয়ারী। সেই মত আগামী ২৭ জানুয়ারি (শুক্রবার) রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠন মহার্ঘ ভাতা (ডিএ) আদায়ের দাবিতে মিছিল করবে বলে ঠিক করেন। কিন্তূ মেলেনি কলকাতা পুলিশের অনুমতি। সেই কারণে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন সরকারি কর্মচারী সংগঠনগুলি।

মঙ্গলবার বিচারপতি রাজশেখর মান্থা ওই মামলার রায়ে সরকারি কর্মচারীদের পক্ষে মিছিলের অনুমতি দেন। মিছিলের অনুমতি মেলায় বকেয়া ডিএর (DA) দাবিতে ২৭ জানুয়ারী সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে কলকাতা কর্পোরেশন পর্জন্ত মিছিল করায় আর কোন বাধা রইল না সরকারি কর্মচারীদের। তবে সরকারি কর্মচারী সংগঠনের আমিনিয়া হোটেলের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসার সিদ্ধান্তে সায় দেননি বিচারপতি মান্থা। তার বদলে শহীদ মিনার চত্বরে অবস্থান বিক্ষোভে বসার অনুমতি দেওয়া হয়,তবে বিক্ষোভের পর শহীদ মিনার চত্বর পরিষ্কার করার দায়িত্ব তাদেরকেই নিতে হবে বলে জানিয়ে দেন বিচারপতি। এই রায়কে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বড় জয় হিসেবেই দেখছে সরকারি কর্মচারীদের ২৮ টি সংগঠন।

(আরও পড়ুন : কৃষক বন্ধু প্রকল্পের টাকা ঢুকেছে কি না জানবেন কি ভাবে ? জানুন তিনটি সহজ পদ্ধতি)

কারণ ডিএ (Dearness Allowance) নিয়ে তাদের সঙ্গে সরকারের সংঘাত বহুদিনের। অনেকদিন ধরেই সংগঠনগুলি তাদের প্রাপ্য বকেয়া মহার্ঘভাতা দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছে। কিম্তু সরকার তাতে কর্ণপাত না করায় তারা কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়। অনেক বছর ধরে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা চলার পর কলকাতা হাইকোর্ট রাজ্য সরকারকে সরকারি কর্মচারীদের বকেয়া মহার্ঘ্য ভাতা মিটিয়ে দেওয়ার আদেশ দেয়। কিন্তূ রাজ্য সরকার কলকাতা হাইকোর্টের এই সিদ্ধান্তের সন্তুষ্ট না হওয়ায় ডিএ মামলাকে সুপ্রিম কোর্টে নিয়ে যায়।

৫ ডিসেম্বর ডিএ মামলা প্রথমবার সুপ্রিম কোর্টে ওঠে। কিন্তূ শুনানির দিন পিছিয়ে ১৪ ডিসেম্বর করা হয় । ১৪ ডিসেম্বর মামালাটি ওঠে দুই বাঙালি বিচারপতি ঋষিকেশ রায় ও দীপঙ্কর দত্তের এজলাসে। কিন্তূ বিচারপতি দত্ত মামলা থেকে সরে দাঁড়ানোয় ওই দিন মামলার শুনানি বন্ধ হয়ে যায়। পরে ১৬ জানুয়ারি বিচারপতি দীনেশ মাহেশ্বরী ও ঋষিকেশ রায়ের বেঞ্চে মামলার শুনানি হয়। কিন্তূ দুই বিচারপতি শুনানির তারিখ পিছিয়ে ১৬ মার্চ ধার্য করেন। শুনানির দিন বদলানোর কারণ হিসাবে তারা জানান রাজ্যের পেশ করা হলফনামায় গলদ আছে। তবে সরকারি কর্মচারী সংগঠন গুলি মনে করছেন এই মামলায় তাঁদের জয় কার্যত নিশ্চিত,আগামী ১৬ মার্চ মামলার রায় তাদের পক্ষেই আসব,বকেয়া ডিএ দিতে বাধ্য হবে রাজ্য সরকার।

শেয়ার করুন

Leave a Comment